Search Here To Find Out Anything Shortcut

Monday, November 30, 2009

Dubai Shares Plunge

Collection From BBC News

The main stock markets in Dubai and Abu Dhabi have closed sharply lower.Abu Dhabi saw a record one-day fall of 8.3%, while Dubai's Financial Market Index lost 7.3% - the biggest decline since October 2008.

Dubai's finance minister, Abdulrahman al-Saleh, said the government was not responsible for Dubai World's debt. "Creditors need to take part of the responsibility for their decision to lend to the companies," he told Dubai Television.

He added: "They think Dubai World is part of the government, which is not correct,"
Shares traded in the region for the first time since the state-owned property company Dubai World asked for an extension on repaying its debts.

Dubai's property developer, Nakheel, asked for trading of some of its Islamic bonds to be suspended. European markets were trading slightly lower. The UK's FTSE 100 was down 0.7%, Germany's Dax fell 0.7% and France's Cac 40 slid 1.3%.

Banks fell more sharply - in the UK, RBS was down 4.6% while Lloyds shed 5.7%. On the Dubai bourse, construction and financial stocks slumped nearly 10%. The debt-ridden Dubai World fell 15%.

"This was expected because markets have panicked over exaggerated reports in the Western media," Hamam al-Shamaa from Al-Fajr Securities said. He added that many foreign investors were withdrawing from the market and that tomorrow would probably be a similar day.

World reaction

While shares in the Middle East dropped sharply, Asian shares rebounded on Monday on hopes the Dubai debt crisis will not spread to other financial markets after the UAE central bank decision.

Asian markets closed before the announcement that Nakheel had asked to suspend some of its bonds. Banks such as Mizuho Financial and Mitsubishi UFJ Financial Group in Tokyo, and HSBC and Standard Chartered in Hong Kong led the rally.

Tokyo's Nikkei 225 index rose 2.9%, while Hong Kong's Hang Seng gained 3.6% and stocks in Shanghai rose 2.5%. Shares in Samsung C&T, builder of the Burj tower in Dubai that will be the world's tallest when completed, gained nearly 5%.

The yen rose against the dollar after the announcement from Nakheel, paring earlier declines. The South Korean won also gained after the finance ministry said its banks had "limited" exposure to Dubai debt. Crude oil rose by 1% to more than $76 a barrel, after the benchmark commodity slid last week on fears over Dubai's financial health.

Bank assistance

On Sunday, the central bank of the United Arab Emirates (UAE) said it was setting up a facility to provide banks with extra liquidity. The liquidity will be available to all UAE banks as well as foreign banks operating in the Emirates.

The bank added that the banking system in the UAE was more sound and liquid than a year ago. That came after Wednesday's announcement from Dubai World asking for a suspension on its debt repayments, which sent world stock markets tumbling.

Meanwhile, neighbouring Abu Dhabi has said it will "pick and choose" how to assist Dubai. "We will look at Dubai's commitments and approach them on a case-by-case basis," an Abu Dhabi government official said on Saturday. "It does not mean that Abu Dhabi will underwrite all of their debts," he added.

Paying the price

The BBC's economics editor Stephanie Flanders said the situation in Dubai had alerted investors to the idea that you can lose money on government bonds - even if they appear to have implicit guarantees.

The repercussions of Dubai's debt crisis is already making it more expensive for countries with large deficits to sell their debt. "There are lots of other governments out there who don't have rich neighbours with oil to bail them out, who may have trouble in the next few months or years," she commented. "Greece and Latvia are paying more for their debt, thanks to Dubai."

Monday, November 23, 2009

Gold Hits New Record

Collection : BBC News

The price of gold has hit a new all-time high, boosted by continued concerns about the weakening dollar.

Gold hit a record of $1,167.35 an ounce, up by about $15 from Friday's closing prices.

The expectation that US interest rates will remain low has put pressure on the dollar, making gold more attractive as an investment.

Growing demand from emerging markets, particularly in Asia, is also helping to drive the price of gold higher.

Emerging market governments are looking to diversify their foreign exchange holdings and are buying gold as a result.

"Sentiment is very upbeat and gold is looking increasingly attractive," said Stefan Graber at Credit Suisse.

Analysts expect the price of gold to continue rising.

"It looks like $1,200 will be seen much sooner than expected," said Afshin Nabavi at gold bullion refiner MKS Finance.

Dse Stock Analysis : Islami Bank


Recommend Date 20 November.

Safest bank of dse is islami bank. Its funtamental situation is very strong.

Where city bank now 700. Why islami bank here.

Should Go......... Target near 800.

Todays Movement

Dse Stock Analysis : Ab Bank


Recommend Date : 20 November Targer 1200+ Within 10 December. Among Bank I like Abbnk. Now its pe near 11 . You can except pe 15.

Todays Movement

Friday, November 20, 2009

Provati Insurance IPO lottery Result

Free Download Pravati Insurance IPO lottery result

Result Published

To Get Your Result Click The Bank Name where you submitted the application form.










Now visit following website to know more.

The IPO lottery draw of Provati Insurance Limited will be held on December 15 subject to approval of the Securities and Exchange Commission (SEC), the company sources said.

The initial public offering (IPO) of the company received an overwhelming response from the applicants, who deposited more than Tk 5.06 billion (506 crore), 56.23 times the value of the total IPO shares worth Tk 90 million (9 crore) on offer for subscription.

The refund warrants of the unsuccessful applicants will be sent back to their respective bank accounts during December 18 to 23 from Dhaka Zilla Krira Sangstha and Motijheel AGB Colony Community Centre, the company sources told the FE.

"Provati Insurance saw the second such rush for IPO subscription after Grameenphone. The market lot of Provati was suitable for the subscribers, if their capability is taken into account. This is the main reason of the overwhelming response of the applicants," Mohsin Reza, office secretary of Provati's issue manager AAA Consultants & Financial Advisers Limited, told the FE.

The face value of a share is Tk 100 and the market lot contains 50 shares. The company takes no premium.

According to the prospectus of the company, its earning per share (EPS) and net asset value (NAV) per share were Tk 20.29 and Tk 176.29 respectively as of December 31, 2008. Its paid-up capital is Tk 150 million (15 crore).


Download these 2 files..........enjoy the draw.........



Tuesday, November 10, 2009

NRB quota in IPOs likely to go up

Collection : The Financial Express

Finance Minister AMA Muhith said Monday the government may raise the existing quota in the initial public offering (IPO) for Bangladeshi expatriates based on their demand for the same.
"We will consider increasing the present 10 per cent quota for non-resident Bangladeshis (NRBs) in IPOs if their demand goes up," Mr Muhith said during a meeting with members of the Bangladesh British Chamber of Commerce (BBCC), led by its Chairman Shahagir Bakth Faruk, at the Secretariat.
The finance minister's observation came after the members of the visiting trade delegation sought Bangladesh government steps for facilitating NRBs' investment in the country's capital market.
Responding to another observation, the finance minister said the government will come up with a package of invectives for boosting investment in the country's shipbuilding industry.
"It (shipbuilding) is an emerging industry of Bangladesh where you can invest," the finance minister told the delegates.
He also went on: "Our incentives are very good. The government has already offered tax exemption and tax-holiday facilities to some sectors like power and energy and readymade garment," Mr Muhith said.
He, however, urged the BBCC trade delegation to invest more in Bangladesh, especially in the fields of power and energy, healthcare, transportation, human development and tourism.
Referring to the existing power and energy situation of Bangladesh, the finance minister also told the trade representative: "You can see how to invest more in power and energy sector... it will be helpful for us."
The government has already initiated a public private partnership (PPP) for the development of infrastructure sector in Bangladesh, Mr Muhith said, adding that the private investors - both local and foreign - can take advantage of it.
Following a proposal made by the BBCC delegate for constituting a 'Spice Board' with a view to helping boost Bangladesh's exports of spices to the ever-growing UK market, Mr Muhith expressed his government's willingness to consider such proposal.
They informed the finance minister that such board is necessary for exporting Bangladesh's spices to the UK, as has been constituted in India.
The BBCC chairman said the trade delegation has come to Bangladesh for exploring the investment opportunity here, and also strengthening further the trade and investment relations between UK and Bangladesh.
"We are keen to boost the bilateral relations between UK and Bangladesh, especially in the areas of trade and investment," Mr. Faruk said.

Export Revenue Decrease By 12P

Collection : Prothom Alo

বিশ্বমন্দার কারণে দেশের রপ্তানি আয়ের ওপর বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। চলতি ২০০৯-১০ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) রপ্তানি আয় আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ১১ দশমিক ৬৬ শতাংশ কমেছে।
এ সময় দেশের প্রধান রপ্তানি খাত নিট ও ওভেন পোশাকের পাশাপাশি হিমায়িত খাদ্য, চামড়া, হোম টেক্সটাইলসহ কয়েকটি পণ্যের রপ্তানি আয় আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে কমে গেছে।
রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) প্রকাশিত তথ্যানুসারে, ২০০৯-১০ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়কালে ৩৮৭ কোটি ডলারের বেশি পণ্য রপ্তানি হয়েছে, যা এই সময়কালের লক্ষ্যমাত্রা ৪৩২ কোটি ৯৬ লাখ ডলারের চেয়ে ১০ দশমিক ৬০ শতাংশ কম।
অন্যদিকে ২০০৮-০৯ অর্থবছরের একই সময়ে রপ্তানি হয়েছিল প্রায় ৪৩৮ কোটি ১৪ লাখ ডলার।
তবে সার্বিকভাবে শুধু সেপ্টেম্বর মাসে রপ্তানি আয় গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় ২৮ দশমিক ২৭, আর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৯ দশমিক ৩৬ শতাংশ কমে গেছে।
চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে ১০৬ কোটি ডলারের কিছু বেশি রপ্তানি আয় হয়েছে। ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বরে রপ্তানি আয়ের পরিমাণ ছিল ১৪৭ কোটি ৮০ লাখ ডলার।
আলোচ্য সময়কালে লক্ষ্যমাত্রা ও আগের বছরের একই সময়ের রপ্তানি আয়ের চেয়ে বেশি হওয়া—উভয় ক্ষেত্রেই এগিয়ে আছে পাটপণ্য, ইলেকট্রনিকস, কৃষি প্রক্রিয়াজাত খাদ্য ও কাট ফ্লাওয়ার বা ফোলিয়েজ। তবে কাঁচা পাট, টেরিটাওয়েল, মেলামাইন টেবিলওয়্যার, ক্যামেরার যন্ত্রাংশের রপ্তানি আগের বছরের তুলনায় বাড়লেও লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় কমেছে। আর শাকসবজি, তামাক, পাদুকা, পেট্রোলিয়ামজাত প্রভৃতি পণ্যের রপ্তানি আয় লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় বাড়লেও আগের বছরের চেয়ে কমেছে।
চলতি বছর জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়কালে পরিমাণগত দিক থেকে রপ্তানি আয়ের শীর্ষে রয়েছে নিট পোশাক খাত। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ওভেন পোশাক খাত।
তবে এ সময়কালে নিট পোশাকের রপ্তানি প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭ দশমিক ৮৬ এবং ওভেন পোশাকের ক্ষেত্রে ১৬ দশমিক ৩৩ শতাংশ কমে গেছে।
ইপিবির তথ্য অনুযায়ী জুলাই-সেপ্টেম্বর মাসে ১৬৫ কোটি ৩৯ লাখ ডলারের নিট পোশাক রপ্তানি হয়েছে, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের ১৮৩ কোটি ডলারের তুলনায় ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ কম।
আর আলোচ্য সময়ে ১৩৭ কোটি ৬৬ লাখ ডলারের ওভেন পোশাক রপ্তানি হয়েছে, যা আগের বছরের একই সময়ের ১৫২ কোটি ৫১ লাখ ডলারের রপ্তানির চেয়ে ৯ দশমিক ৭৪ শতাংশ কম।
এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ নিট পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিকেএমইএ) সভাপতি ফজলুল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিশ্বমন্দার প্রভাবে দেশের পোশাক রপ্তানিতে বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। দীর্ঘদিন ধরে পোশাকশিল্প মালিকেরা মন্দার প্রভাব দেশের পোশাকশিল্পে পড়বে—এ কথা বলে এলেও সরকারি মহল তা আমলে নেয়নি। মন্দা রোধে নেয়নি কোনো কার্যকর কোনো ব্যবস্থা। আগে থেকে ব্যবস্থা নিলে এ ধরনের বিপর্যয় হয়তো ঠেকানো যেত।’ রপ্তানিতে আরও বিপর্যয় যাতে না হয়, এ জন্য তিনি দ্রুত সরকারি সহায়তার সুপারিশ করেন।
এদিকে বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী অক্টোবর মাসেও রপ্তানি আয় কমার আশঙ্কা করেছেন। তিনি বলেছেন, প্রতিযোগী দেশগুলোর সরকার তাদের শিল্পকারখানার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্যাকেজ ও পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করায় তাদের প্রতিযোগিতার সক্ষমতা বেড়ে গেছে। তাতে তারা আন্তর্জাতিক বাজার দখল করে নিচ্ছে।
সরকারের কাছ থেকে নীতি-সহায়তা পেলে এই ‘আপত্কালীন সংকট’ কাটিয়ে ওঠা সম্ভব বলেও মন্তব্য করেন বিজিএমইএর সভাপতি।
চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে ১০ কোটি ১৮ লাখ ডলারের হিমায়িত খাদ্য, তিন কোটি ৬০ লাখ ডলারের কাঁচা পাট, আট কোটি ৫৬ লাখ ডলারের পাটপণ্য, পাঁচ কোটি ৫৫ লাখ ডলারের চামড়া, ছয় কোটি ৯৬ লাখ ডলারের হোম টেক্সটাইল ও পাঁচ কোটি ৬২ লাখ ডলারের পাদুকা রপ্তানি হয়েছে।
এ ছাড়া দুই কোটি ৬২ লাখ ডলারের বাইসাইকেল, এক কোটি ডলারের ওষুধ, দুই কোটি ৯৩ লাখ ডলারের রাসায়নিক সার, এক কোটি ৩৪ লাখ ডলারের তাজা শাকসবজি ও এক কোটি ৯৩ লাখ ডলারের টেক্সটাইল ফেব্রিক্স পণ্য রপ্তানি হয়েছে।

Caps Bangladesh Limited

Collection : Prothom Alo

চট্টগ্রামের চার বৃহত্ কোম্পানি মিলে গঠন করেছে ক্যাপস বাংলাদেশ লিমিটেড। কেডিএস, এবিসি, পিএইচপি ও এস আলম গ্রুপের সমন্বয়ে গঠিত এই ক্যাপস বাংলাদেশ দুই হাজার ২০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে মৌলিক ইস্পাত কারখানা হট রোল ইস্পাত স্থাপনে।
জানা গেছে, ইতিমধ্যে কারখানা স্থাপনের জন্য জায়গা ঠিক হয়ে গেছে। কাজ শুরু হবে আগামী বছরের শুরুতে। শেষ হবে ২০১৩ সালে। এক লাখ টন উত্পাদন ক্ষমতাসম্পন্ন এই ইস্পাত কারখানার ৬০ শতাংশ পণ্য স্থানীয় বাজারে বিক্রি হবে। আর বাকি ৪০ শতাংশ রপ্তানি করা হবে। কারখানা স্থাপন করে দেবে ইতালির ড্যানিয়েলি করপোরেশন।
প্রসঙ্গত, দশমিক পাঁচ থেকে এক মিলিমিটার পুরুত্বের সিআই শিট তৈরি হয় কোল্ড রোল ইস্পাত থেকে। বিভিন্ন পুরুত্বে এসব সিআই শিট দিয়ে তৈরি হয় বাসের কাঠামো, ঢেউটিন, কোমল পানীয়র ক্যান। আর এই কোল্ড রোল কারখানায় কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার হয় হট রোল ইস্পাত। হট রোলের একটি স্ট্রিপ ৯০০ থেকে এক হাজার ৬০০ মিলিমিটার চওড়া এবং ১৫ মিলিমিটার পুরু হয়। দেশে পাঁচ লাখ টন চাহিদার পুরোটাই এখন বিদেশ থেকে আমদানি করে মেটানো হয়।
পরিকল্পনার শুরু: প্রায় এক দশক আগে চট্টগ্রামের বৃহত্ ব্যবসায়ী গ্রুপগুলো দেশে একটি হট রোলিং মিল স্থাপনের ব্যাপারে স্বপ্ন দেখতে থাকে। কিন্তু ২০০৭ সাল পর্যন্ত টাটা এ খাতে বিনিয়োগে আগ্রহ দেখানোর কারণে স্থানীয় উদ্যোক্তারা অনেকটাই চুপচাপ থাকেন। মূলত টাটার ৩০০ কোটি ডলারের বিনিয়োগ পরিকল্পনার সামনে তাঁদের পরিকল্পনা খড়কুটোর মতো ভেসে যায়।
কিন্তু ২০০৭ সালে টাটা তাদের পরিকল্পনা বাতিল করলে নতুনভাবে ভাবতে শুরু করেন দেশীয় উদ্যোক্তারা। বিভিন্ন দেশ ঘুরে, কারখানা দেখে স্বপ্ন বাস্তবে দানা বাঁধতে থাকে। ২০০৮ সালে চট্টগ্রামের এস আলম, পিএইচপি, কেডিএস ও আবুল খায়ের গ্রুপ যৌথভাবে বার্ষিক ২০ লাখ টন উত্পাদন ক্ষমতাসম্পন্ন একটি হট রোলিং মিল স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য ভারতের এসার গ্রুপের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়। কিন্তু সরকার চট্টগ্রামে শিল্পকারখানায় নতুন গ্যাস সংযোগ দেওয়া স্থগিত রাখলে এসার গ্রুপের সঙ্গে বিনিয়োগের সে পরিকল্পনা ভেস্তে যায়।
তবে থেমে থাকেনি পরিকল্পনা। এস আলম, কেডিএস, পিএইচপি ও এবিসি মিলে নতুন কনসোর্টিয়াম গঠন করে। প্রতিষ্ঠানগুলোর নামের আদ্যক্ষর নিয়ে এর নামকরণ হয় ক্যাপস। ইতিমধ্যে ক্যাপস কারখানা তৈরির জন্য ইতালির ড্যানিয়েলি করপোরেশনের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। ২০১০ সাল থেকে কাজ শুরু হয়ে যাবে। শেষ হবে ২০১৩ সালে। আর উত্পাদন শুরু হবে ২০১৪ সাল থেকে।
কোথায় হবে কারখানা: কর্ণফুলী সার কারখানার সঙ্গে লাগোয়া ১০০ একর জমিতে এই হট রোলিং কারখানা স্থাপন করা হবে। প্রাথমিক হিসাবে ১০ লাখ টনের বার্ষিক উত্পাদন ক্ষমতার এই ইস্পাত কারখানার পেছনে মোট বিনিয়োগ হবে দুই হাজার ২০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি বিদ্যুত্ উত্পাদন কেন্দ্রও আছে।
দ্বৈত জ্বালানির ভিত্তিতে এই কারখানা গড়ে উঠবে। শুরুতে জ্বালানি হিসেবে ফার্নেস অয়েল ব্যবহার করা হবে। তারপর গ্যাস পাওয়া গেলে গ্যাস ব্যবহার করা হবে। বর্তমানে চট্টগ্রামে শিল্পকারখানায় গ্যাস সংযোগ বন্ধ আছে।
অর্থায়ন: দুই হাজার ২০০ কোটি টাকার এই প্রকল্পে ৭০ শতাংশ বিনিয়োগ করবে আর্থিক প্রতিষ্ঠান, আর বাকিটা উদ্যোক্তারা নিজে। উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রধান হিসেবে ভূমিকা পালন করতে রাজি হয়েছে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক। একই সঙ্গে ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকও (আইডিবি) প্রকল্পে অর্থায়ন করবে।
উদ্যোক্তাদের বক্তব্য: এ ব্যাপারে ক্যাপসের পরিচালক আব্দুস সামাদ লাবু প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিগত এক দশক ধরেই আমরা স্বপ্ন দেখছি বাংলাদেশে হট রোলিং মিল করার। আমরা একটু ধীরগতিতে এগিয়ে ছিলাম। কারণ, টাটা এখানে এ খাতে বিনিয়োগের পরিকল্পনা করেছিল। তারপর ভারতের এসার গ্রুপের সঙ্গে ২০০৮ সালে চট্টগ্রামের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ীরা একটি হট রোলিং মিল করার জন্য সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন। সেই পরিকল্পনায় আমরাও ছিলাম। কিন্তু পরে দেশে গ্যাস সংকটের কারণে এসার গ্রুপ পিছিয়ে যায়। এখন আমরা ফার্নেস অয়েল দিয়ে প্রথম কারখানা চালু করব। পরে সরবরাহ নিশ্চিত হলে গ্যাস ব্যবহার হবে।’

Monday, November 9, 2009

Global Crisis A Chance To Change Business

Collection : The Daily Star

Nobel Peace Laureate Muhammad Yunus calls the global economic crisis "an excellent opportunity to reflect and redesign" businesses, and devote creative ones to solving social problems.

Yunus told the media in Germany on Saturday: "Any problem has a potential of being addressed with a social business."

"Social business being a business where you don't make money," he explained. "Zero profit for the investors."

The ground-breaking "microcredit" banker is backed by corporations like food giant Danone, global water group Veolia, sportswear company Adidas, software pioneer SAP and academics at Kyushu University in Japan.

The first Global Grameen Meeting of companies, foundations, thinktanks, scientific experts and other institutions was hosted by Europe's largest carmaker Volkswagen at its headquarters in Wolfsburg, northern Germany.

Grameen is a Bengali word for village, and "was chosen to indicate that big projects may start small," a statement said.

The forum's ambitious goal is to eliminate poverty by 2030 in both the developing world and advanced economies.

Ideas that sprouted on the Indian sub-continent are being transplanted in Germany, Europe's biggest economy, and in France, where Danone will draw on its experience with Yunus in Bangladesh to launch a project for the poor in Paris.

"It's really a source of inspiration," Danone representative Emmanuel Faber told a press conference in the company of Yunus and the other groups.

He underscored the "new processes, new ideas, new ways of working that social business has driven into the mainstream way of Danone doing business."

The big group's have not decided to ditch profits altogether but are setting up subsidiaries to work on the social business model in addressing problems with the environment, health care, nutrition and unemployment.

"Each one is dedicated to solving a particular social problem," Yunus said.

Hans Reitz, co-founder with Yunus and director of the Grameen Creative Lab that brought together varied sectors to brainstorm for solutions, said his group would launch seven small companies in Germany with no more than five to seven employees.

"You can start small and give it a try, find out if it works or if it doesn't work," he said, and share the results across what Faber said was now "a global network of people thinking along these lines."

Faber quoted Danone founder Antoine Riboud as stressing "there could not be long-term wealth creation without social progress."

Peter Graf of SAP warned meanwhile that if they failed to act on global issues, there was "a danger of companies losing their social licence to do business."

He called the threat "hugely underestimated as the public gets more and more aware of the crises that we are facing."

Danone plans to launch a project to have 300 people deliver fresh dairy products to Paris area shops on electric-powered tricycles.

The drivers would be ex-convicts or others faced with marginal living situations and the plan would cut carbon dioxide emissions from delivery vans withdrawn from circulation, he said.

In Germany, Reitz is experimenting with business loans to 15-year-old school children to show them they could later be self-employed.

Making cakes, candles and music CDs allowed German and immigrant youth to "start a small business and create an identity," he said.

Sunday, November 8, 2009

Mutual Fund Can issue Right Share

Details : The Daily Star

The High Court (HC) yesterday handed down a verdict allowing closed-end mutual funds to issue bonus shares or rights issues. The same day, the HC halted the operation of the verdict for a week after the Securities and Exchange Commission (SEC), the market regulator, sought more time to appeal against the verdict.

In line with the verdict, the mutual funds will have to seek permission for bonus shares from the SEC, which market analysts say is a usual procedure. The verdict will be applicable to the mutual funds that had come to the market before the SEC brought some changes to the mutual fund rules.

The mutual fund operators now will be able to announce dividends that have been pending for long.An HC bench comprising Justice Syed Mahmood Hossain and Justice Quamrul Islam Siddiqui passed the verdict following a writ petition challenging the modifications of mutual fund rules by the SEC.

Three investors -- Ibrahim Akand, Delwar Hossain and Raihana Haque -- filed the writ petition. In response to the petition, the HC in August last year stayed the stock market regulator's ban on the issuance of bonus shares or rights issues for closed-end mutual funds.

The HC also stayed the dividend declarations by all mutual fund managers until disposal of the case.In July last year, the SEC approved changes in mutual fund rules barring closed-end mutual funds from offering bonus shares as dividends or right issues to increase their capital base.

A mutual fund is a professionally managed type of collective investment scheme that pools money from many investors and invests it in stocks, bonds, and short-term money market instruments.

Dr M Zahir appeared for the writ petitioners, while Advocate Mahmudul Islam defended the SEC in court.

Janata Bank IPO By January

Collection The Daily Star

Bangladesh's capital market is going to be more vibrant in three months with the entry of state-owned Janata Bank, the country's second biggest commercial bank after Sonali.

“The board of the bank approved draft prospectus last week. Now we will send it to the Securities and Exchange Commission for the final approval,” said Jahangir Mia, deputy managing director (DMD) of the bank.

The board has approved raising Tk 100 crore from the capital market through an initial public offering (IPO).

Janata with Tk 800 crore authorised capital will seek Tk 900 premium for each share valued at Tk 100 only considering the bank's asset, earnings and brand values.

“We expect this bank shares to be traded in the stock markets in January 2010 after meeting the SEC queries, ” Mia told The Daily Star yesterday.

Janata is the second state bank to be listed with the stock market, with Rupali Bank being the first one.

The capital market has been experiencing unprecedented growth rate. Since 2003, market capitalisation has increased by 15 times and reached $15 billion, an amount that is 20 percent of the country's GDP.

The recent trends also show the market's stability, despite global recession and equity market volatility. Analysts say the market has huge demand, but the supply is too little. Entry of more public sector companies will have a two-way change--- qualitative and quantitative, they say.

Janata Bank, a public limited company (PLC) since November 15, 2007, has a total asset of nearly Tk 25,000 crore. The main objective of transforming the bank into a PLC is to bring more efficiency and transparency.

Two other state-owned commercial banks -- Sonali and Agrani -- also became public limited companies at the same time with the same purpose. But Janata goes ahead in terms of offloading shares.

The bank's paid-up capital reached Tk 385 crore with issuing bonus shares worth Tk 116 crore very recently.

“The capital base of the bank will reach Tk 500 crore mark with issuing Tk 125 crore worth right shares soon,” said the DMD.

Janata, which was nationalised as per Bangladesh Bank (Nationalisation) Order 1972 immediately after the country's independence, has 849 branches, including four overseas branches in the United Arab Emirates.

Sheltech Will Be Listed By 2011

Collction : Sharebiz

গত ২ দশকে দেশের হাউজিং ও রিয়েল এস্টেট খাতে অসংখ্য কোম্পানি আত্মপ্রকাশ করলেও পুঁজিবাজারে তারা আসছে না। বিষয়টি কিভাবে দেখছেন আপনি?
তৌফিক এম সেরাজ : ব্যবসায়িক ভিত্তিতে যে আবাসন শিল্প রাজধানী ঢাকাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে তা প্রাতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করে গত ৫ থেকে ১০ বছরের মধ্যে। যদিও বিগত প্রায় আড়াই দশক ধরে দেশে এ খাতের সূচনা হয়েছে, যা ক্রমেই সম্প্রসারিত হচ্ছে। এটি উৎপাদনশীল শিল্প খাতের মতো প্রথাগত কোনো শিল্প খাত নয়। এখানে দক্ষ-অদক্ষ অসংখ্য শ্রমিক দৈনিক ভিত্তিতে কাজ করে। কার্যক্রম পরিচালনা করছে ছোট-বড় প্রায় ৬০০ ডেভেলপার ও হাউজিং প্রতিষ্ঠান। এদের অনেকের প্রকল্পের সংখ্যা মাত্র ১টি আবার কারো শতাধিক। পুঁজিবাজারে আসতে হলে প্রতি বছর যে টার্নওভার দরকার তা ধারাবাহিকভাবে অর্জন করতে পারছে না অনেক প্রতিষ্ঠানই। পুঁজিবাজারে যেসব বিনিয়োগকারী এ খাতের প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করবেন তাদেরও তো আকৃষ্ট করতে হবে। না হলে তারাই বা কেন বিনিয়োগ করবেন। তবে আমার জানা মতে, এ খাতের যারা ধারাবাহিকভাবে উল্লেখযোগ্য টার্নওভার অর্জন করছেন, তাদের অনেকেই আগামী ২-১ বছরের মধ্যে পুঁজিবাজারে প্রাথমিক শেয়ার ছেড়ে মূলধন সংগ্রহের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : হাউজিং ও রিয়েল এস্টেট খাতের যেসব প্রতিষ্ঠান আগামীতে পুঁজিবাজারে আসতে পারে এ মুহূর্তে এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কত?
তৌফিক এম সেরাজ : রিয়েল এস্টেট খাত অ্যাসোসিয়েশনে এখন পর্যন্ত অন্তর্ভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৫০০ থেকে ৬০০। ১৯৮৮ সালে মাত্র ৭ জন্য সদস্য ছিল রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব)। এত দিনে এ সংখ্যা হয়তো ৬০০তে উন্নীত হয়েছে। এর মধ্যে গত ৫-৬ বছরে যারা বাজারে এসেছেন তাদের প্রকল্প সংখ্যাও অনেক কম। তবে দীর্ঘ সময় ধরে যারা সুনামের সঙ্গে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন তাদের অনেকেরই পুঁজিবাজারে প্রাথমিক শেয়ার ছাড়ার মতো সক্ষমতা তৈরি হয়েছে। রিয়েল এস্টেট সেক্টরের অংশীদার হিসেবে আমি কারো নাম উল্লেখ করতে চাই না। তবে যারা শেয়ারবাজারের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট তারাই বলতে পারবেন রিয়েল এস্টেট সেক্টরে পুঁজিবাজারে আসার মতো প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কত। এ ‘গিভ অ্যান্ড টেক’র ভিত্তিতে পুঁজিবাজারে এসে সংশ্লিষ্ট কোম্পানি যেমন লাভবান হবে, তেমনই লাভবান হবেন বিনিয়োগকারীরাও। কিন্তু পুঁজিবাজারে এসে কোনো কোম্পানিকে যদি হতাশাব্যঞ্জক চিত্রে দেখা যায় তাহলে তা যেমন এ খাতের জন্য মঙ্গলজনক হবে না, তেমনি জাতীয় অর্থনীতি কিংবা পুঁজিবাজারের জন্যও নয়। আমি মনে করি, রিয়েল এস্টেট সেক্টর নিয়ে জাতীয় সংবাদ মাধ্যমেও নেতিবাচক সংবাদ বেশি প্রকাশিত হয়। সংবাদ মাধ্যমগুলোতে যদি এ খাতের উন্নয়ন এবং অগ্রগতির সংবাদ বেশি প্রচারিত হতো তাহলে পুঁজিবাজারের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদেরও এ খাতের প্রতি আগ্রহ তৈরি হতো। আবাসন সমস্যা সমাধানে বা জাতীয় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে এ খাত যে ভূমিকা রাখছে সেগুলো যদি সংবাদ মাধ্যমে প্রস্ফুটিত হতো তাহলে অনেকেই আগ্রহ বোধ করতেন। পুঁজিবাজারে এলেই যে বিনিয়োগকারীরা এ খাতের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে উঠবেন তাও বোধহয় সত্যি নয়। কাজেই সুনাম রয়েছে এমন কোম্পানিকেই প্রথমত পুঁজিবাজারে আসতে হবে। প্রাথমিকভাবে এ ধরনের কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজারে শেয়ার ছাড়ার পর যদি দেখা যায়, উদ্যোক্তা এবং ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী উভয়ই লাভবান হয়েছেন তাহলে পর্যায়ক্রমে অন্য কোম্পানিগুলোর বাজারে প্রবেশের পথ সুগম হবে।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : আপনি এ খাতে সরকারের পৃষ্ঠপোষকতার অভাবের কথা বিভিন্ন সময় বলেছেন, এ ব্যাপারে কিছু বলুন?
তৌফিক এম সেরাজ : এ খাত অনেকটা পথ শিশুর মতো। অনাদরে-অবহেলায় ধীরে ধীরে আজকের এ পর্যায়ে এসেছে। তাই সক্ষম কোম্পানিগুলো যাতে পর্যায়ক্রমে পুঁজিবাজারে প্রবেশ করতে পারে সে ব্যাপারে সরকারের সহযোগিতার ব্যাপারে আমি আশাবাদী।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : বিগত বছরগুলোতে জাতীয় বাজেটে রিয়েল এস্টেট খাতে বিনিয়োগের মাধ্যমে কালো টাকা সাদা করার যে সুযোগ সরকার দিয়েছিল, তা কি এ খাতের জন্য প্রণোদনামূলক নয়?
তৌফিক এম সেরাজ : আমি ব্যক্তিগতভাবে কালো টাকা আছে বলে মনে করি না। এটিকে অপ্রদর্শিত আয় বলা যেতে পারে। শুধু রিয়েল এস্টেট খাত কেন জাতীয় অর্থনীতির মূল প্রবাহে এ অর্থ যুক্ত হলেও তা অর্থনীতিকে চাঙ্গা করবে। আমি নিশ্চিত, আমাদের অর্থনীতিতে অপ্রদর্শিত অর্থ আগেও ছিল, এখনো রয়েছে। আরো অনেক দিন হয়তো থাকবে, যতক্ষণ পর্যন্ত অর্থনীতি ফরমাল পর্যায়ে না আসবে। জাতীয় অর্থায়ন ব্যবস্থাপনা যতক্ষণ পর্যন্ত স্বচ্ছ পর্যায়ে উন্নীত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত অপ্রদর্শিত অর্থ থাকবে। কাজেই এটা শুধু রিয়েল এস্টেট সেক্টর নয়, বরং অর্থনীতির সব খাতকেই চাঙ্গা করতে পারে। বাংলাদেশের সামাজিক বাস্তবতায় ফ্ল্যাট বা বাড়ি এখনো খুব প্রয়োজনীয়। যতক্ষণ পর্যন্ত কেউ একটি বাড়ি ও ফ্ল্যাট বা বসত জমির মালিক না হন ততক্ষণ পর্যন্ত নিজে অর্থনৈতিক এবং সামাজিকভাবে সুরক্ষিত মনে করেন না। সেজন্য একজন মানুষের হাতে অর্থ সঞ্চিত হলে প্রথমেই একটি বাড়ি, অ্যাপার্টমেন্ট বা জমি কেনার চেষ্টা করেন। সেটি প্রদর্শিত কিংবা অপ্রদর্শিত যে অর্থেই হোক না কেন। সেজন্য অপ্রদর্শিত আয়ের অর্থে ফ্ল্যাট কিংবা জমি কেনার সুযোগ আগের বছরগুলোতে ছিল, এখনো রয়েছে। বিগত কয়েক বছরে রিয়েল এস্টেট খাত খুবই দুর্বল ছিল, তবে এখন আবার চাঙ্গা হওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ চাঙ্গাভাব ধারাবাহিকভাবে না থাকলে হাউজিং প্রতিষ্ঠানগুলো পুঁজিবাজারে আসতে পারবে না। কোনো শিল্প প্রতিষ্ঠানে ধারাবাহিক প্রবৃদ্ধি না থাকলে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার পর আরো সমস্যার সৃষ্টি হয়। রিয়েল এস্টেট খাতের গত ২ দশকের পরিসংখ্যান নিলে দেখা যাবে, মাঝে মধ্যেই এ খাতকে বেশ মন্দাবস্থায় পড়তে হয়েছে। বিগত আড়াই বছরেও বড় ধরনের মন্দার মধ্যে ছিল রিয়েল এস্টেট খাত। হঠাৎ নির্মাণ সামগ্রীর দাম বেড়ে গিয়েছে। তবে ধীরে ধীরে এ খাতে স্থিতিশীলতা আসতে শুরু করেছে এবং প্রবৃদ্ধিও বাড়ছে। যদি সরকার ব্যবসাবান্ধব নিয়মনীতি অনুসরণ করে তাহলে আবাসন খাত আরো উন্নত ও বিকশিত হবে। আমার দৃঢ় বিশ্বাস আগামী বছরগুলোতে এ খাতের বেশ কিছু কোম্পানি পুঁজিবাজারে আসবে।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : আপনারা দীর্ঘদিন ধরে রিয়েল এস্টেট খাতের জন্য ব্যাংক ঋণের সুদের হার কমাতে বলেছেন, কিন্তু পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের মাধ্যমে কার্যক্রম সম্প্রসারণের কথা বলছেন না কেন?
তৌফিক এম সেরাজ : সেটি করতে হলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর ন্যূনতম বার্ষিক টার্নওভার ও পর্যাপ্ত সংখ্যক প্রকল্প থাকতে হবে। এ বছর আমার ৫টি প্রকল্প বাস্তবায়ন হলো আর আগামী বছর কিছুই নেই এ অবস্থায় পুঁজিবাজারে প্রবেশ সম্ভব নয়। রিয়েল এস্টেট সেক্টরের যে প্রতিষ্ঠানটি পুঁজিবাজারে আসবে তাকে পরবর্তী ১০ বছরের প্রকল্প বাস্তবায়ন লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করে নিতে হবে। প্রতি বছর একাধিক নতুন প্রজেক্ট হাতে নিতে হবে এবং তার বাস্তবায়ন ঘটাতে হবে।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : পুঁজিবাজারে গ্রামীণফোনের মতো বহুজাতিক কোম্পানিও অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। প্রতিনিয়ত সম্প্রসারিত হচ্ছে পুঁজিবাজার। এ সম্প্রসারণকে আপনি কিভাবে দেখছেন?
তৌফিক এম সেরাজ : আমি পুঁজিবাজার বিশেষজ্ঞ নই। তাই এ বিষয়ে মূল্যায়ন করতে চাই না।
শেয়ার বিজ কড়চা : আপনি শেলটেকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন শুরু থেকেই। এ প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যৎ লক্ষ্য সম্পর্কে বলবেন?
তৌফিক এম সেরাজ : শেলটেক ১৯৮৮ সাল থেকে কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। আমরা শুরু থেকেই চেষ্টা চালিয়ে আসছি রিয়েল এস্টেট সেক্টরে একটি পৃথক ধারা বজায় রাখতে। বিভিন্ন সময় এর উত্থান-পতনও হয়েছে। এখন পর্যন্ত আমরা উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পেরেছি। গত কয়েক বছর ধরে বেশ বড় বড় প্রকল্প হাতে নিচ্ছি। এসব প্রকল্পে ন্যূনতম ১০০টি করে অ্যাপার্টমেন্ট থাকছে। আগামী বছর থেকে একই জায়গায় ২০০ অ্যাপার্টমেন্ট নির্মাণের পরিকল্পনা নিতে যাচ্ছি। এ অবস্থায় আমাদের পরিকল্পনা হচ্ছে সব কিছু যদি ঠিকঠাক মতো চলে তাহলে আগামী ২০১১ সালের মধ্যে শেলটেকও পুঁজিবাজারে আসবে। এজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ শুরু করেছি। ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ ইউনিটের নির্মাণ কাজ হাতে থাকবেÑ এটি যখন আমরা নিশ্চিত হবো তখন অবশ্যই পুঁজিবাজারে আসবো। আশা করছি, ২০১১ সালের মধ্যে সে লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব হবে।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : এ মুহূর্তে সরকারের কাছে আপনাদের প্রত্যাশা কি?
তৌফিজ এম সেরাজ : এ মুহূর্তে নতুন কিছু প্রত্যাশা করছি না। সরকারকে খেয়াল রাখতে হবে নিয়মনীতির বেড়াজালে হাত-পা বেঁধে ফেললে ব্যবসা করা যাবে না। যে কোনো সেক্টরেই ভালো-মন্দ ব্যবসায়ী থাকেন। কেউ হয়তো ইচ্ছা বা অনিচ্ছা যে কারণেই হোক ভালো করতে পারেন না। এজন্য পুরো সেক্টরকে যদি নতুন নতুন আইনের বেড়াজালে বেঁধে ফেলা হয় তাহলে অগ্রসর হওয়া কঠিন হবে।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : আপনারা দীর্ঘদিন উচ্চ মধ্যবিত্তের জন্য আবাসন পরিকল্পনা করেছেন। পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের মাধ্যমে আপনাদের আবাসন সম্প্রসারণ পরিকল্পনাটি কেমন?
তৌফিক এম সেরাজ : আমরা যখন পুঁজিবাজারে আসবো তখন আমাদের আবাসন পরিকল্পনা হবে যারা নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণী তাদের নিয়ে, উচ্চবিত্তের আবাসন নিয়ে নয়। আমাদের ভবিষ্যতে পরিকল্পনা হলো সীমিত আয়ের পরিবার যাতে ভাড়ার টাকায় অ্যাপার্টমেন্টের মালিক হতে পারেন সে ধরনের প্রকল্প হাতে নেয়া। ঢাকার প্রান্তিক এলাকাগুলোতে বড় বড় প্রকল্প হাতে নিয়ে বাস্তবায়ন করবো। পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলন করে স্যাটেলাইট শহর বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নেবে শেলটেক।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : এ পর্যন্ত শেলটেকের বাস্তবায়িত প্রকল্পের সংখ্যা কতটি? এ মুহূর্তের কার্যক্রমই বা কেমন?
তৌফিক এম সেরাজ : এ পর্যন্ত ১০০টির বেশি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে শেলটেক। ২ হাজারেরও বেশি অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি ও হস্তান্তর করা হয়েছে। এ মুহূর্তে ১ হাজারের বেশি ইউনিট নির্মাণাধীন। আগামী বছরগুলোতে কয়েক হাজার ইউনিট বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে। আমরা সুনাম ঠিক রেখে নিজেদের অগ্রসর করার চেষ্টা চালাচ্ছি।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : পুঁজিবাজারের খবর নিয়ে একটি দৈনিক পত্রিকা হিসেবে ‘শেয়ার বিজ্ কড়চা’কে কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?
তৌফিক এম সেরাজ : যারা এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত তারা এ পত্রিকার মাধ্যমে উপকৃত হবেন বলেই মনে করছি। আগে এ ধরনের পত্রিকা ছিল না। এ পত্রিকা নিশ্চয়ই শেয়ারবাজারের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের উপকারে আসবে।
শেয়ার বিজ্ কড়চা : আপনাকে ধন্যবাদ সময় দেয়ার জন্য।
তৌফিক এম সেরাজ : ধন্যবাদ ‘শেয়ার বিজ্ কড়চা’কে।

Fair Value Of A Stock By Book Building


পুঁজিবাজারে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি কার্যকর করা হলে উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারী উভয়ই উপকৃত হবেন। শুধু তাই নয়, শেয়ারের ন্যায্যমূল্যও নিশ্চিত হবে বুকবিল্ডিং প্রবর্তন করা হলে। একই সঙ্গে বড় বড় কোম্পানিগুলোর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তি অনেকটাই সহজ হবে এবং তারা তাদের শেয়ারের ন্যায্যমূল্য পাবে।
গতকাল সকালে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে ‘বুকবিল্ডিং মেথড ফর প্রাইজ ডিসকভারি’ বিষয়ক এক সেমিনারে বক্তারা এ কথা বলেন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রেসিডেন্ট মো. রকিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) চেয়ারম্যান জিয়াউল হক খন্দকার।
সেমিনারে বুকবিল্ডিংয়ের ওপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এসইসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ আবদুল হান্নান জোয়ার্দার, ‘পটেনসিয়াল অফ বাংলাদেশ ক্যাপিটাল মার্কেট’ বিষয়ক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ডিএসইর এজিএম সৈয়দ আল আমিন রহমান। সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডিএসইর সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. সাইফুল ইসলাম। সেমিনারে আরো উপস্থিত ছিলেন ডিএসইর ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. শাকিল রিজভী, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সতীপতি মৈত্র প্রমুখ। সেমিনারে মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও পুঁজিবাজার বিশ্লেষক অধ্যাপক আবু আহমেদ, ডিএসইর সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি আহমেদ রশিদ লালি, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী স্যামসন এইচ চৌধুরী, সামিট এলায়েন্স পোর্টের এমডি মোহাম্মদ রিজভী প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসইসির চেয়ারম্যান জিয়াউল হক খন্দকার বলেন, বুকবিল্ডিং পদ্ধতি হচ্ছে পর্যাপ্ত প্রচারণার মাধ্যমে আইপিও প্রাইজ নির্ধারণ করা। আর এ পদ্ধতিতে প্রাইজ নির্ধারণ করা হলে কোম্পানিগুলো তাদের শেয়ারের ন্যায্যমূল্যে পাবে এবং বিনিয়োগকারীরাও উপকৃত হবেন। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বর্তমানে এ পদ্ধতি খুবই প্রয়োজনীয়।
তিনি বলেন, বুকবিল্ডিং পদ্ধতি অনুসরণ করা হলে অনেক বড় বড় কোম্পানি পুঁজিবাজারে আসতে উৎসাহিত হবে। আর এসব কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হলে বাজারে ভালো শেয়ারের সরবরাহ বাড়বে। এতে বিনিয়োগকারীদের হাতেগোনা কয়েকটি মৌলভিত্তি সম্পন্ন কোম্পানির শেয়ারের ওপর নির্ভর করতে হবে না।
এসইসির চেয়ারম্যান আরো বলেন, ১৯৯৫ সালে ভারতের পুঁজিবাজারে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি কার্যকর করা হয়েছে। সেখানে বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে শেয়ার ছাড়া যে বাস্তব সম্মত হয়েছে, ইতিমধ্যে তা প্রমাণিত হয়েছে। এ পদ্ধতি সুফল বিনিয়োগকারী ও কোম্পানিগুলো পেতে শুরু করেছে।
তিনি বলেন, গত ২ বছরে পুঁজিবাজারে যত আইপিও এসেছে গড়ে প্রতিটি আইপিও ১০ থেকে ১৫ গুণ ওভার সাবক্রিপশন হয়েছে। বাজারে ভালো শেয়ারের সরবরাহ কম থাকায় এটা হচ্ছে।
জিয়াউল হক খন্দকার আরো বলেন, শেয়ারবাজারে উন্নতি করতে হলে বাজারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়াতে হবে। আর এ আস্থা বাড়ানোর জন্য এসইসি বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে। বাজার স্থিতিশীল রাখতে ইতিমধ্যে মার্জিন ঋণের বিষয়ে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে এবং বিনিয়োগকারীদের সেবার মান বৃদ্ধির জন্য রিফান্ড ওয়ারেন্ট বিনিয়োগকারীদের অ্যাকাউন্টে জমা করার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।
ডিএসইর প্রেসিডেন্ট মো. রকিবুর রহমান বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন করা সম্ভব। পৃথিবীর প্রায় অধিকাংশ দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে পুঁজিবাজার অবদার রাখছে। বাংলাদেশের পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ করে দেশের দারিদ্র্য বিমোচন করা যেতে পারে।
তিনি বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়নের জন্য রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানির শেয়ারগুলো দ্রুত সময়ের মধ্যে বাজারে ছেড়ে দেয়া উচিত।
ডিএসইর সভাপতি বলেন, বাজারের সূচক বাড়লে বা কমলে কিছু যায় আসে না। সূচক ১ হাজার হলেও যেমন কিছু যায় আসে না। তেমনি ৪ হাজার হলেও কোনো সমস্যা নেই। ভারতে সূচক এক দিনে ২১ হাজার থেকে ৮ হাজারে নেমে এসেছিল। তারপরও বাজার স্বাভাবিক ছিল। বিনিয়োগকারীরা আতঙ্কিত হননি। তিনি বলেন, মৌলভিত্তির শেয়ারে বিনিয়োগ করলে এবং ‘জেড’ গ্রুপে বিনিয়োগ না করলে লোকসানের কোনো আশঙ্কা নেই। তবে অতিমূল্যায়িত শেয়ার কিনে ক্ষতিগ্রস্ত হলে এর দায়দায়িত্ব ডিএসই নেবে না।
মো. রকিবুর রহমান বলেন, নন-রেসিডেন্স ইন্ডিয়ান (এনআরআই) ও নন-রেসিডেন্স চায়নিজরা (এনআরসি) যদি তাদের দেশের উন্নয়ন করতে পারে তাহলে নন-রেসিডেন্স বাংলাদেশিরা (এনআরবি) কেন আমাদের দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখতে পারবেন না। এ ক্ষেত্রে সরকারকে পুঁজিবাজারে এনআরবিদের বিনিয়োগের আরো সুযোগ করে দিতে হবে।
মূল প্রবন্ধে এসইসির নির্বাহী পরিচালক আবদুল হান্নান জোয়ার্দার বলেন, ১৯৮০ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এবং কানাডায় প্রথম বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়। তিনি বলেন, এ পদ্ধতিতে ইস্যুর আকার অর্থাৎ পরিশোধিত মূলধন ৩০ কোটি থেকে ৫০ কোটি টাকা হলে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ, মিউচ্যুয়াল ফান্ডের জন্য ১০ শতাংশ এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য ১০ শতাংশ কোটা থাকবে। অবশিষ্ট ৬০ শতাংশ শেয়ার বিনিয়োগকারী ও কোম্পানির পরিচালকদের জন্য থাকবে। ইস্যুর সাইজ ৫০ কোটি থেকে ১০০ কোটি টাকা হলে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য ৩০ শতাংশ কোটা থাকবে। বাকি ১০ শতাংশ মিউচ্যুয়াল ফান্ডের জন্য, ১০ শতাংশ এনআরবিদের এবং ৫০ শতাংশ কোম্পানির পরিচালক ও ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য নির্ধারিত থাকবে।

Friday, November 6, 2009

US Shares Have Risen Strongly

Collection : BBC News

US shares have risen strongly after official figures showed that US business productivity has risen at its highest rate for six years.Productivity, as measured by output per hour of work, rose at an annual rate of 9.5% between July and September.

The data suggests that firms, which have cut jobs in the downturn, are now increasing their output, which may in turn lead to them needing more staff. Wall Street's main Dow Jones index ended up 2% following the news.

Increased payrolls

"We believe businesses will have to start to increase hours worked and payrolls around the turn of the year since they cannot expect their current work force to sustain such rapid productivity growth," said Michelle Meyer, an economist at Barclays Capital.senior economist at RBS in Connecticut agreed, saying: "Companies will be forced to add workers earlier in this recovery than was the case following the last two recessions."

If firms do start to take on more staff quicker than had been expected, it would be good news for an economy where the labour market is trailing behind the wider recovery. For while the US economy grew 3.5% in July to September - its first expansion since June 2008 - the official jobless rate rose to 9.8% in September, a 26-year high.

The Federal Reserve, the US central bank, left interest rates on hold at between 0% and 0.25% on Thursday, where they have remained since December of last year. It reiterated its view that rates would need to stay at the historic low for an "extended period" to help the continuing economic recovery.

95 Crore Taka Earned By Eng. Sector

Collection : Sharebiz

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের ১৯টি কোম্পানির সর্বশেষ অর্ধবার্ষিক হিসাব অনুযায়ী ৯৫ কোটি ২৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা করপরবর্তী মুনাফা হয়েছে। এ খাতের সর্বশেষ প্রকাশিত অর্ধবার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। প্রকৌশল খাতের তালিকাভুক্ত ২২টি কোম্পানি তাদের আর্থিক হিসাব প্রকাশ করেছে। এর মধ্যে ৩টি কোম্পানির লোকসান হয়েছে। লোকসানের পরিমাণ ৬১ লাখ ১০ হাজার টাকা। ফলে এ খাতের নিট মুনাফার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯৪ কোটি ৬৫ লাখ ৫০ হাজার টাকায়।
প্রকাশিত প্রতিবেদনে কোম্পানিগুলোর মুনাফা, শেয়ারপ্রতি আয়, মোট লেনদেন এবং গত এক বছরের তুলনামূলক অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে। এ হিসাব অনুযায়ী আগের বছরের একই সময়ে ১৯টি কোম্পানির করপরবর্তী মুনাফা হয়েছিল ৩৩ কোটি ৩২ লাখ ৩০ হাজার টাকা। এক বছরের ব্যবধানে মুনাফা বেড়েছে ৬১ কোটি ৩৩ লাখ ২০ হাজার টাকা। সর্বশেষ অর্ধবার্ষিক হিসাব অনুযায়ী এ খাতে মোট লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৭৭৮ কোটি ৯৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা।
আফতাব অটোমোবাইলসের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী করপরবর্তী মুনাফা হয়েছে ৪ কোটি ৬ লাখ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১৭ টাকা ৭০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ৭ টাকা ১৫ পয়সা। অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজের মুনাফা ৩ কোটি ৬৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ১৮ টাকা ৯৬ পয়সা। বাংলাদেশ ল্যাম্পসের মুনাফা হয়েছে ১ কোটি ৮০ লাখ ৩০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ২৫ টাকা ২ পয়সা। ইস্টার্ন ক্যাবলসের মুনাফা ৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ১৬ পয়সা। মুন্নু জুটেক্সের লোকসান হয়েছে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৫ টাকা ২৭ পয়সা। মুন্নু জুট স্ট্যাফলারের মুনাফা ৫ লাখ ১০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ১২ টাকা ৮৫ পয়সা। সিঙ্গার বাংলাদেশের মুনাফা ৬ কোটি ৭৬ লাখ ৩০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ৩০ টাকা ১৪ পয়সা। এটলাস বাংলাদেশের মুনাফা হয়েছে ৭ কোটি ৫২ লাখ ৬০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ৭ টাকা ৫৩ পয়সা। বিডি অটোকারসের মুনাফা ১৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৪ টাকা ১৩ পয়সা। কাশেম ড্রাইসেলের মুনাফা ২ কোটি ৩০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ১ টাকা ৪ পয়সা। রেনউয়িক যজ্ঞেশ্বরের মুনাফা হয়েছে ১০ লাখ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৫ টাকা। ন্যাশনাল টিউবসের মুনাফা হয়েছে ১ কোটি ৩৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ১০ টাকা ১৪ পয়সা। বিডি থাই অ্যালুমিনিয়ামের মুনাফা হয়েছে ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় ২৩ টাকা ৪ পয়সা। আনোয়ার গ্যালভানাইজিংয়ের লোকসান হয়েছে ৪৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৩ টাকা ৪৫ পয়সা। কে অ্যান্ড কিউয়ের মুনাফা ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ২ টাকা ৭৯ পয়সা। রংপুর ফাউন্ড্রির মুনাফা হয়েছে ১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লাভ-লোকসানের হিসাব দেখানো হয়নি। এস আলম গোল্ড রোল্ড স্টিলের মুনাফা ৬ কোটি ২৫ লাখ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১১ টাকা ৩০ পয়সা। গোল্ডেনসন লিমিটেডের মুনাফা হয়েছে ২ কোটি ৭৬ লাখ ৮০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১ টাকা ১ পয়সা। ন্যাশনাল পলিমারের মুনাফা হয়েছে ১ কোটি ২০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৩৭ টাকা ৩৭ পয়সা। বিএসআরএম স্টিল লিমিটেডের মুনাফা হয়েছে ৩৪ কোটি ৩৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ২৩ টাকা ৭০ পয়সা। নাভানা সিএনজি লিমিটেডের মুনাফা হয়েছে ১৫ কোটি ২০ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৫ টাকা ২ পয়সা।

New Ipo Should Be 40p Of Capital

সংগ্রহ : প্রথম আলো

 পুঁজিবাজারে শেয়ার ছেড়ে অর্থ সংগ্রহ করতে হলে নতুন কোম্পানিকে পরিশোধিত মূলধনের কমপক্ষে ৪০ শতাংশ প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বাজারে ছাড়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। অন্যদিকে যেকোনো ধরনের ‘প্লেসমেন্ট’ শেয়ারকেও নিরুত্সাহিত করার প্রস্তাব করা হয়েছে।
মিউচুয়াল ফান্ডের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের প্রাক্-আইপিও প্লেসমেন্টের সুযোগ না রাখার কথা বলা হয়েছে বৈঠকে। অর্থাত্ আইপিওতে আসার আগেই কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির শেয়ার বরাদ্দ দেওয়া যাবে না। বরাদ্দ দেওয়া হলে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য তা ‘লক-ইন’ থাকবে। অর্থাত্ নির্দিষ্ট সময় শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত শেয়ারগুলো বিক্রি বা হস্তান্তর করা যাবে না।
সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত পুঁজিবাজারসংক্রান্ত উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে গতকাল এমন প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে অর্থ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান আ হ ম মোস্তফা কামাল, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান, অর্থসচিব মোহাম্মদ তারেক, সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) চেয়ারম্যান জিয়াউল হক খোন্দকার, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর জিয়াউল হাসান সিদ্দিকী, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হুমায়ুন কবীরসহ সংশ্লিষ্ট সরকারি প্রতিষ্ঠানের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, আ হ ম মোস্তফা কামাল বৈঠকে বাজার-ব্যবস্থাপনার জোরালো সমালোচনা করেন। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, আলোচনার ভিত্তিতে পরবর্তী সময়ে মন্ত্রণালয় এসব বিষয়ে এসইসিকে দিকনির্দেশনা দেবে। এর ভিত্তিতেই এসইসি সিদ্ধান্ত নেবে।
সূত্রটি জানায়, বৈঠকে বলা হয়েছে, সার্বিকভাবে মিউচুয়াল ফান্ড নিয়ে বাজারে সমস্যা হচ্ছে। তাই মিউচুয়াল ফান্ডের ক্ষেত্রেও কোনো ধরনের প্রাক্-আইপিও প্লেসমেন্টের সুযোগ রাখা যাবে না। বিকল্প হিসেবে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য লক-ইন আরোপ করা যেতে পারে।
সূত্র আরও জানায়, বৈঠকে ব্যক্তি খাতের কোনো কোম্পানিকে আর সরাসরি তালিকাভুক্তির মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের সুযোগ না দেওয়ার পক্ষে জোরালো মতামত দেওয়া হয়। এ বিষয়ে বলা হয়, সরাসরি তালিকাভুক্তির মাধ্যমে কয়েকটি কোম্পানি বাজার থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ তুলে নিয়ে গেছে। ভবিষ্যতে সরাসরি তালিকাভুক্তি নয়, আইপিওর মাধ্যমে আসতে হবে। সরাসরি তালিকাভুক্ত হতে পারবে শুধু সরকারি কোম্পানিগুলো। তবে ব্যক্তি খাতের কোম্পানিগুলোকে ‘বুক বিল্ডিং’ পদ্ধতির মাধ্যমে শেয়ার ছাড়ার সুযোগ দেওয়া যেতে পারে।
জানা গেছে, বৈঠকে বলা হয়েছে বাজারে শেয়ারের সরবরাহ কম। কিন্তু সে তুলনায় চাহিদা অনেক বেশি। অর্থাত্ কম পরিমাণ শেয়ারের প্রতি বেশি পরিমাণ পুঁজি ধাবিত হচ্ছে। সে কারণেই বাজারে কেবল ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। সরবরাহ বাড়ানোর অংশ হিসেবে বৈঠকে সরকারি কোম্পানির শেয়ার দ্রুততার সঙ্গে সরাসরি তালিকাভুক্তির মাধ্যমে বাজারে নিয়ে আসার পক্ষে মত দেওয়া হয়েছে।
গত কয়েক বছরে বিদ্যুত্ ও জ্বালানি খাতের কোম্পানি ডেসকো, পাওয়ার গ্রিড, তিতাস গ্যাস, যমুনা অয়েল ও মেঘনা পেট্রোলিয়ামকে পুঁজিবাজারে সরাসরি তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে, গত তিন বছরে বেসরকারি খাতের তিনটি কোম্পানি—এসিআই ফরমুলেশন, শাইনপুকুর সিরামিকস ও নাভানা সিএনজি পুঁজিবাজারে সরাসরি তালিকাভুক্ত হয়েছে। কোম্পানিগুলো পৃথকভাবে মাত্র ৬১ কোটি ৪০ লাখ টাকা অভিহিত মূল্যের শেয়ার ছেড়েছে। কিন্তু এর বিপরীতে বাজার থেকে ৭৯৬ কোটি টাকা তুলে নিয়েছে।
বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেননি। পরে প্রথম আলোর পক্ষ থেকে আ হ ম মোস্তফা কামালের কাছে জানতে চাইলে তিনিও কোনো কথা বলতে অপারগতার কথা জানান।
যোগাযোগ করলে সাবেক অর্থ উপদেষ্টা ও এসইসির সাবেক চেয়ারম্যান এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘যদি বৈঠকে এ ধরনের মতামত দেওয়া হয়ে থাকে, তবে আমি বলব, মিউচুয়াল ফান্ডে প্রাক্-আইপিও প্লেসমেন্টের সুযোগ না রাখার সিদ্ধান্তটি ছাড়া বাকিগুলোর একটিও বাজারবান্ধব নয়।’
এ বি মির্জ্জা আরও বলেন, বাজারে মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিটমূল্য যেহেতু অতি মূল্যায়িত হয়ে গেছে, তাই ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের স্বার্থের দিক বিবেচনা করলে প্লেসমেন্টের সুযোগ না রাখাই যৌক্তিক হবে। তবে সরকারি ছাড়া ব্যক্তি খাতের অন্য কোম্পানি সরাসরি তালিকাভুক্তির মাধ্যমে বাজারে আসার পথ বন্ধ করে দেওয়া ঠিক হবে না। উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ধরা যাক, একটি ওষুধ কোম্পানি ১০ বছর ধরে ভালো ব্যবসা করছে। ভালো মানের ওষুধ উত্পাদন, বাজারজাত ও রপ্তানি করে ইতিমধ্যে বাজারে সুনাম অর্জন করেছে এবং ব্র্যান্ড কোম্পানি হিসেবে পরিচিতি অর্জন করেছে। সেই কোম্পানিটি কেন অভিহিত মূল্যেই শেয়ার ছাড়তে চাইবে? সুতরাং শেয়ার সরবরাহ বাড়াতে চাওয়ার সঙ্গে সরকারের এমন সিদ্ধান্তটি স্ববিরোধী।
নতুন কোম্পানির ক্ষেত্রে ৪০ শতাংশ শেয়ার আইপিওর মাধ্যমে সংগ্রহের বাধ্যবাধকতার সঙ্গেও দ্বিমত পোষণ করেন মির্জ্জা আজিজ। তিনি বলেন, এটিও একটি বাজারবিমুখ সিদ্ধান্ত। এমন নিয়ম করা হলে তাঁর ধারণা, কোম্পানিগুলো বাজারে আর আসতেই চাইবে না, যা দীর্ঘ মেয়াদে বাজারের জন্য নেতিবাচক ফল বয়ে আনবে।

Wednesday, November 4, 2009

Online Trading System : Dse


Dhaka Stock Exchange will introduce internet-based trading system within six months to expedite stock trading.
‘For a fast moving market, it is needed to introduce the system,’ DSE president Rakibur Rahman told reporters after a meeting with the US ambassador James F Moriarty at the bourse’s auditorium Tuesday.
‘We’ll try to introduce the internet-based trading system by six months,’ he said.
Internet-based or online trading system means buying and selling stocks by giving the order though internet, usually on a broker’s form. In this system, buy or sale confirmation is done by mail or e-mail.
The DSE president said the settlement period would also be reduced to one day from existing three days if commercial banks launch online money transaction from one bank to another by December in compliance of the central bank’s directive.
On Monday, Bangladesh Bank issued a circular that said from now onwards the subscribers would be able to pay utility bills online from their bank accounts and also transfer funds to other banks. It added that transactions between buyers and sellers can also take place online, enabling e-commerce facilities in the country.
Through the online trading system, anybody can observe the market situation on the internet and place buy and sale order through one’s respective broker.
Quoting the US ambassador the DSE chief said, ‘He appreciated the development of the Bangladesh stock market and called to enhance transparency and accountability in the market to protect the small investors’ interest.’

Dse Stock Analysis : Summit Power


Summit Power

Recommendation Date : 01 November

I am waiting for big breakout...........

This graph of 5 November

8 November >> Just wait and see the magic of summit power.

10 November >> Look At The Chart And My Comment .Keep Ur Patience And Wait to see the magic.It wll happy ur face.

Continue.... I will be updating in this page at any time . So visit every moment

Sunday, November 1, 2009

Dse Stock Analysis : Beximco Pharma


Article Author : Speculator

I don’t know why but I always prefer to go for hard things. After reading the bxpharma news I tried interpret the news immediately and did so. But I kept on thinking what might be the effect of the news in the long run. No need to say, analyzing news which is very uncommon is very tough to predict because not enough data can be found for the purpose and therefore the chance of mistake is greater. So it’s requested to all, please keep in mind about the probability of mistake which is very high in the analysis.

News summary:
Bxpharma will give 10% preference share subject to approval of all related parties at face value of 1000 which at dividend rate of 2.5% per quarter and fully convertible at the 75% market rate (Weighted average price) of bxpharma of the concerned period. However the condition remains one year lock in period for the sale of the shares at mkt.
Prediction of the price:
For predicting the price, we need to remember the few things.

1. Technical trend of the share
2. Fundamental change of the company
3. Expected Change of demand and supply of concerned period

Historical price movement:

Please see the graph of 2007 below and you will observe that the year is bullish and the month from September to November there was almost 50% price hike

Then please look at graph of bxpharma at 2008 and you will find that from month of September to November, the period was bullish for bxpharma. There was again around 50% return during the 3 months period.

This 2 year is just precedent to this year(2009) and we may expect similar price hike this year too during September to November assuming that there is the presence of CYCLICAL EFFECT
Now, we come to add the 2.75 years graph of the bxpharma as (this is just September so yet 3rd year not completed.

Fundamental change of the company:
Bxpharma going to invest in its expansion and in same industry so we may assume its ROE is going to same for future as well.

Let say, bxpharma will use same debt equity ratio as previous so there will not significance change in any ratio. Last thing is they are going to issue share at 75% of market rate. So in the long run, they will earn almost similar for each share ( may be 25 % less if everything is constant). But we hope due to horizontal integration there will be more profit for each taka equity (or ROE is expected to be better).

If so, there is no reason for price fall due to change of fundamentals.


Demand and Supply:

Due to lock in period of one year, we do not expect increase of supply an element of price fall. So there is less probability of price fall due to supply increase.

As a result, our analysis concludes Bxpharma share price have less chance of price fall rather have greater chance of price hike. So we hope this is to be a sound investment.
Expected return:
Capital gain: undetermined. (a)
Preference dividend: 5%
Discount of market price: 25 %
Common dividend: unknown


To do the cost benefit analysis, we need many data specificly which is not found for the period.

for example, we need to know, what will be the price in november 2010? What will be dividend give on my existing common shares?

However, if we assume that we will sell our original holdings that we buy before record date after record date, that can be easier.

Here is my assumptions.

We buy beximco pharma at rate of 160 tomorrow or day after tomorrow. As (today mkt was downward we hope we can buy below todays rate).

After record date, we hope we can sell the shares at the same rate ( as there is no bonus or cash dividend nor even right at the moment) we assume its treated no corporate benefit. Second point, beximco pharma now on support level so we hope no more corrections.

So after record date we sell on breakeven ( although i assume due to cyclical effect of 2007 and 2008 we can get some capital gain in 2009 as well if we hold till november).

Now, we assume we get one preferred share at 1000. We calculate 3 probabilities of return in 3 different situations.

first we get 5% dividend on 1000 means = 50 taka.
Second, we get 25% discount to get the shares so let say, in 2010 we have 8.33 shares buy price 120 taka(75% of 160 taka).
So we can sell them at 160 taka minimum so total sell price =8.33X160 = 1333 taka.

so total revenue = 1333+50 = 1383 taka.

Rate of return = ((1383-1000)/1000)X100% = 38. 3 %.

This is the minimum return we can expect from the right offer.

As bexpharma already came back from 200 level we hope we can sell our shares at 200. In that case , we say mid point of 200 and 160 will be weighted average price or 180. so issue price will be 180X.75 = 135

So we will get 1000/135 = 7.40 shares.

So sell price at 2010 will be = 200X7.40 = 1481
dividend gain(50) + 1481 = 1531

So gain will be = ((1531-1000)/1000)X 100% = 53.1%.

SO CAPITAL GAIN = (107-52)/52 =105 %. FROM SEPTMEBER 2007 TO SEPTEMBER 2008.

SEPTEMBER 2009 PRICE IS 166 TAKA. SO CAPITAL GAIN = (166-107) = 55 %.



TOTAL GAIN = (2213-1000) + 50 TAKA = 1263 Tk.

RETURN = 126. 3 %.



not a bad idea to invest !!!!!!!!!! alas i dont have lot of money to make some long term investment as i am a very small trader!!


Information of life Auto Insurance Donation and Attorney Copyright © 2008